যে চ্যানেলে দেখা যাবে আর্জেন্টিনা ইকুয়েডরের ফুটবল ম্যাচ

বিশ্বকাপের টিকেট পেতে বাছাই পর্বের শেষ ম্যাচে বুধবার মাঠে নামবে মেসি বাহিনী। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় আগামীকাল ভোর সাড়ে ৫টায়। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে সনি টেন ৩।

ইকুয়েডরের বিপক্ষে ম্যাচটি আর্জেন্টিনার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ২০১৮  বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার সুযোগ পেতে হলে আজেন্টিনার সামনে জয়ের বিকল্প নেই। এ ম্যাচের উপর নির্ভর করছে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ খেলা।

বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে এখন পর্যন্ত ১৭ ম্যাচ খেলে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে আর্জেন্টিনার। ইকুয়েডরের বিপক্ষে শেষ দুইবারের সাক্ষাতে একটিতে জয় পায় আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপে সুযোগ পেতে আর্জেন্টিনার সামনে জয়ের কোনো বিকল্প নেই।

তবে বাছাই পর্বের ম্যাচটি হবে ইকুয়েডরের মাঠেই। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে তিন হাজার মিটার ওপরের এ মাঠে খেলতে অস্বস্তিতে ভোগে সবাই। নিজেদের শেষ ম্যাচের জন্য এর চেয়ে কঠিন ভেন্যু পেতেন না মেসিরা। সেখান থেকে খুব কম দলই জিতে আসতে পেরেছে।

তবে এর উল্টো পিঠেও একটা সুসংবাদ পাচ্ছে আর্জেন্টিনা। একই দিন তিনে থাকা চিলির শেষ ম্যাচ ব্রাজিলের বিপক্ষে, সেটাও সাও পাওলোতে। চার ও পাঁচে থাকা কলম্বিয়া ও পেরু লড়বে পরস্পরের বিপক্ষে। ফলে আর্জেন্টিনার মূল প্রতিদ্বন্দ্বি যারা, তাদের সবার পয়েন্ট হারানোর ভালো সম্ভাবনা আছে।

আর্জেন্টিনা যদি নিজেদের ম্যাচে জেতে এবং কলম্বিয়া-পেরু ম্যাচটি ড্র হলেই বিশ্বকাপ নিয়ে দুশ্চিন্তা থাকবে না মেসি-ডি মারিয়াদের। আর চিলি ও কলম্বিয়া যদি নিজেদের ম্যাচ জিতে যায়, তবে ইকুয়েডরের মাঠে জয় পেলেও প্লে অফ খেলতে হবে আর্জেন্টিনাকে। এখন যা অবস্থা, তাতে আর্জেন্টিনা পাঁচে শেষ করে প্লে অফ খেলতেও নিশ্চয়ই রাজি। কিন্তু আর্জেন্টিনার ভাগ্য এখন নিজেদের হাতে নেই। সবচেয়ে বড় অনিশ্চয়তাটা এখানেই।

দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের পয়েন্ট টেবিল এখন এতটাই জটিল, ম্যাচ বাকি আছে মাত্র একটি। অথচ এখন পর্যন্ত মূল পর্ব নিশ্চিত করেছে শুধু ব্রাজিল।

আর্জেন্টিনার স্কোয়াড :
গোলরক্ষক : রোমেরো, নাহুয়েল গুজম্যান, মার্চেসিন
ডিফেন্ডার : ফ্যাজিও, মাম্মানা, প্যাজেল্লা, মাসচেরানো, ওতামেন্দি, মার্কেদো
মিডফিল্ডার : অ্যাকুনা, ডি মারিয়া, বিগলিয়া, প্যারেডস, বানেগা, গোমেজ, সালভিও এবং রিগোনি
ফরোয়ার্ড : লিওনেল মেসি, সার্জিও আগুয়েরো, মাওরো ইকার্দি, পাওলো দিবালা

দক্ষিণ আফ্রিকার পয়েন্ট টেবিল-
দেশ ———– পয়েন্ট
১. ব্রাজিল —— ৩৮
২. উরুগুয়ে —- ২৮
৩. চিলি ———২৬
৪. কলম্বিয়া——২৬
৫. পেরু———২৫
৬. আর্জেন্টিনা—২৫
৭. প্যারাগুয়ে—-২৪
৮. ইকুয়েডর—-২০
৯. বলিভিয়া—–১৪
১০. ভেনেজুয়েলা- ৯

রাশিয়া বিশ্বকাপে ‘অনুপস্থিত’ মেসি!
লিওনেল মেসিবিহীন বিশ্বকাপ? কল্পনাও করতে পারছে না আর্জেন্টাইন গণমাধ্যম। বোকা জুনিয়র্সের মাঠে পেরুর সাথে গোলশূন্য ড্র’তে আসন্ন রাশান বিশ্বকাপে দেশটির অংশগ্রহণের নিয়ন্ত্রণ চলে গেছে অন্যান্য ম্যাচগুলোর ফলাফলের ওপর। তবে লাতিন দেশটির গণমাধ্যমের লেখনিতে কোনো প্রভাব ফেলতে পারেনি ২০১৮ সালের মেগা আসরে প্রতিনিধিত্বে চরম অনিশ্চিয়তা। বরং বার্সেলোনা সেনসেশন লায়নেল মেসিবিহীন বিশ্বকাপ সম্ভব কি না, তা শিরোনামে রেখে প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছে ফুটবল দুনিয়ায়? কিন্তু লাতিন আমেরিকার ম্যারাথান বাছাইপর্বের চিত্রনাট্য ইঙ্গিত দিচ্ছে অন্য রকম বাস্তবতার। শেষ রাউন্ডের ফলাফলের মারপ্যাঁচে পড়েছে সর্বশেষ ফুটবলের তিনটি বড় আসরের ফাইনালিস্ট মেসি অ্যান্ড কোংয়ের ২০১৮ সালের বিশ্বকাপ ভাগ্য!

১৭ খেলার মাত্র ২৫ পয়েন্ট সংগ্রহে প্লে-অফ পজিশনেরও বাইরে আর্জেন্টিনা। বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচটি তাদের জন্য পরিণত হয়েছে বাঁচা-মরার লড়াইয়ে। অস্তিত্ব রক্ষার চ্যালেঞ্জের মহা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোরে মাঠে নামছে দুই বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নেরা। তাদের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক ইকুয়েডর ইতোমধ্যেই বিদায় নিয়েছে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের রেস থেকে। তবে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে অনেক উঁচুতে অবস্থিত কুইটো নগরীতে আর্জেন্টাইনদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের ইতিহাস মোটেও সমৃদ্ধ নয়। হার শেষ তিন ম্যাচের দু’টিতেই! ফলে চাপের বাড়তি বোঝা মাথায় রেখেই আর্জেন্টাইনদের লড়তে হচ্ছে বাছাইপর্বের ডু অর ডাইয়ের খেলায়।

লাতিন আমেরিকার দুই বছরের বাছাইপর্বের লড়াইয়ের শেষ দিনেই ভাগ্য চূড়ান্ত হবে রাশিয়া বিশ্বকাপের বেশির ভাগ প্রতিনিধির। মহাদেশটির চ্যাম্পিয়ন হিসেবে একমাত্র ব্রাজিল নিশ্চিত করেছে আসছে মেগা আসরের অংশগ্রহণ। পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষ চারে শেষ করা দলগুলো সরাসরি অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে খেলার। পঞ্চম দলটিকে খেলতে হবে মহাদেশীয় প্লে-অফ। প্রতিপক্ষ ওশেনিয়ার চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ড।

১৭ খেলা শেষ হওয়ার পরও রাশিয়া বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের প্রশ্নে লাতিন জোনের উন্মুক্ত চারটি পজিশনের লড়াইয়ে চূড়ান্ত ফয়সালা হবে বাছাইপর্বের সমাপ্তি দিনে। ছয় দল জানবাজি রেখে লড়বে ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরে খেলার গৌবর অর্জনের নিমিত্তে। কাকতালীয় হলেও বাস্তবতা হচ্ছে প্রত্যেকটি দলের বিশ্বকাপ ভাগ্য নির্ধারণে এক্স ফ্যাক্টর ভূমিকা পালন করবে অন্যান্য দলগুলোর মধ্যকার ম্যাচের ফলাফল। পেরুর বিপক্ষে অস্তিত্ব রক্ষার ম্যাচ কলম্বিয়ার। ১৭তম রাউন্ডে প্যারাগুয়ের মোকাবেলায় লিড নিয়েও হেরে যাওয়ায় সঙ্কটে পড়ে গেছে পেকারম্যানের দলের বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ। ম্যাচটিতে কলম্বিয়া জিতলে ইকুয়েডরের বিপক্ষে ড্র’তে রাশিয়ার টিকিট নিশ্চিত হওয়ার পথ খোলা থাকবে আর্জেন্টিনার সামনে। কুইটোয় জয়োৎসবই জটিল সমীকরণের মারপ্যাঁচ থেকে বের করে আনবে মেসিদের। তারা শীর্ষ চারে থেকেই চূড়ান্ত পর্বে অংশ নিতে কলম্বিয়া ও চিলি জিততে ব্যর্থ হলে।

ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের ব্যর্থতার কলঙ্ক রচনার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যাওয়ার পরও আত্মবিশ্বাস অটুট রেখেছেন কোচ জর্জ সামপাওলি। তার বিশ্বাস, বিশ্বকাপে খেলবে আর্জেন্টিনা। ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলার যোগ্যতা অর্জনে লাতিন জায়ান্টরা ব্যর্থ হয় ১৯৭০ সালের বাছাইপর্বের ব্যর্থতায়। ইকুয়েডরের বিপক্ষে ম্যাচ সামনে রেখে তিনি বলেন, আমি অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসী আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপে অংশগ্রহণে।

আপনার মন্তব্য দিন

শেয়ার