মাগরিবের সময় যে দোয়া পড়বেন !!

হজরত সাহল ইবনে সাদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘দুই (সময়ের) দোয়া ফিরিয়ে দেয়া হয় না; অথবা কমই ফিরিয়ে দেয়া হয়। (এক) আজানের সময়ের দোয়া এবং (দুই) প্রচণ্ড যুদ্ধ চলাকালীন সময়ের দোয়া; যখন একে অপরকে নিধন করতে থাকে।’ (আবু দাউদ, দারেমি, মিশকাত)

হাদিসের অন্য বর্ণনায় এসেছে, ‘বৃষ্টির নিচের দোয়া অর্থাৎ বৃষ্টির সময়ের দোয়া।’ (আবু দাউদ, মিশকাত)

বৃষ্টি বর্ষণ কিংবা নামাজে আহ্বানের সময়টি আল্লাহর অনেক বড় রহমতের সময়। বৃষ্টি যেমন মানব-দানব, জীব-জন্তু সবার জন্য আসমান থেকে নাজিল হয়। তেমনি আল্লাহর আনুগত্য প্রকাশে মানুষ আজান শুনার সঙ্গে সঙ্গে রহমত লাভে মসজিদে হাজির হয়।

সুতরাং এ সময়গুলোতে দোয়া করলে আল্লাহ তাআলা বান্দার সব আবেদনই কবুল করেন এবং তাঁকে ক্ষমা করেন। হাদিসে এসেছে-

হজরত উম্মে সালামাহ রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাকে এ কথাগুলো মাগরিবের আজানের সময় শিখিয়েছেন-

উচ্চারণ :

‘আল্লাহুম্মা হাজা ইক্ববালু লাইলিকা; ওয়া ইদবারু নাহারিকা; ওয়া আসওয়াতু দুআতিকা; ফাগফিরলি।’

অর্থ :

‘হে আল্লাহ! এটা তোমার রাতের আগমন; দিনের প্রস্থান এবং তোমার আহ্বানকারীদের (মুয়াজ্জিনের) ডাকার সময়। সুতরাং তুমি আমাকে ক্ষমা করে দাও।’ (আবু দাউদ, বাইহাকি, মিশকাত)

হাদিসে উল্লেখিত দোয়াটি মাগরিবের সময়ের জন্য নির্ধারিত। বিশেষ করে এ দোয়াটি মাগরিবের আজানের আগে অথবা পরে পড়া যাবে। আবার আজানের জবাব দেয়ার সময় কিংবা আজানের পর দোয়া মুনাজাতের সময়ও পড়া যাবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে নিয়মিত মাগরিবের সময় উল্লেখিত দোয়াটি পাঠ করার মাধ্যমে নিজেকে গোনাহমুক্ত করার এবং আল্লাহর নৈকট্য লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।

জন্মদিনে কী করতেন মহানবী (সা.)

জন্মদিনে কী করতেন মহানবী সা.
গোটা বিশ্বের জন্য রহমত হয়ে এসেছিলেন হজরত মুহাম্মদ (সা.)। কবে তিনি এ বিশ্বে তাশরিফ এনেছেন? এ বিষয়ে মতভেদ দেখা যায়।

প্রসিদ্ধ অভিমত হলো, মহানবী (সা.) ১২ রবিউল আউয়াল জন্মগ্রহণ করেছেন। হাদিসবিশারদ ও ঐতিহাসিকদের কাছে সর্বাধিক নির্ভরযোগ্য অভিমত হলো, আবরাহার হস্তীবাহিনীর বিনাশপ্রাপ্তির ৫০ থেকে ৫৫ দিন পর রাসুল (সা.) ৮ রবিউল আউয়াল সোমবার সুবহে সাদিকের সময় আবু তালিবের ঘরে জন্মগ্রহণ করেন।

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.), জুবাইর ইবনে মুতঈম (রা.), আল্লামা ইবনুল জাওজি, কুতুবউদ্দীন কাসতালানি (রহ.)সহ বেশির ভাগ মুহাদ্দিস ও জীবনীকার এ বিষয়ে ঐকমত্য পোষণ করেছেন। [সিরাতে মুস্তফা (বাংলা) : ১/৬৩-৬৪, ইদ্রিস কান্ধলবী, জুরকানি : ১/১৩০-৩১]

প্রখ্যাত ঐতিহাসিক মুহাম্মদ সুলাইমান মানসুরপুরী ও মাহমুদ পাশার অনুসন্ধানি অভিমত হলো, রাসুল (সা.)-এর জন্ম তারিখ ৯ রবিউল আউয়াল। ইংরেজি পঞ্জিকা মতে, তারিখটি ছিল ৫৭০ খ্রিস্টাব্দের ২০ অথবা ২২ এপ্রিল। (মাহমুদ পাশা, তারিখে খুজরি, প্রথম খণ্ড, পৃ. ৬২, সুলাইমান মানসুরপুরী, রাহমাতুল্লিল আলামিন, প্রথম খণ্ড, পৃ. ৩৮-৩৯)

মহানবী (সা.) যে যুগে জন্মগ্রহণ করেছেন, সে যুগে জন্ম তারিখ রেজিস্ট্রি করে রাখার প্রথা ছিল না। সম্ভ্রান্ত পরিবারগুলোতেও এ রেওয়াজ ছিল না। সে হিসেবে রাসুল (সা.)-এর জন্ম তারিখও কোথাও লিপিবদ্ধ ছিল না। তাই তাঁর জন্ম তারিখ ১২ রবিউল আউয়াল কি না, তা নিয়ে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে।

তবে ১২ রবিউল আউয়াল রাসুল (সা.)-এর ওফাত হওয়ার ব্যাপারে কারো মতবিরোধ নেই। কেননা তত দিনে তিনি বিশ্বনবী হিসেবে তাঁর দায়িত্ব পালন করে ফেলেছেন। গোটা বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন।

তাই মানুষ গুরুত্বের সঙ্গে তাঁর ওফাত দিবসের তারিখ স্মরণে রেখেছে। সুতরাং যদি মেনে নেওয়া হয় যে ১২ তারিখ রাসুল (সা.)-এর জন্ম তারিখ, তাহলে দেখা যায় ওই দিনই তাঁর ওফাত দিবস। কাজেই এই দিন একই সঙ্গে আনন্দ ও বেদনার।

যদি জন্ম তারিখের দিকে থাকাই, তাহলে এটা খুশির দিন। আবার রাসুল (সা.)-এর ইন্তেকালও যেহেতু এই দিনে, সে হিসেবে দিনটি দুঃখেরও দিন।

প্রশ্ন হলো, আমরা দিনটি কিভাবে উদ্যাপন করব? আমরা দেখতে পাই, সাহাবায়ে কেরাম ও তাবেইনের যুগে তাঁরা খুশির দিবস হিসেবেও পালন করেননি, শোক দিবস হিসেবেও পালন করেননি।

বরং আমরা দেখতে পাই, মহানবী (সা.) জন্ম তারিখ নয়, জন্ম বার বা জন্মের দিন উদ্যাপন করতেন। কিন্তু সে উদ্যাপনও কোনো উৎসব, মিছিল বা ভোজনরসিকতার মাধ্যমে নয়। মহানবী (সা.) তাঁর জন্মের দিন সোমবার রোজা রাখতেন। হাদিসবিশারদরা লিখেছেন, মহানবী (সা.)-এর জন্মের কারণে প্রতি সোমবার রোজা রাখা মুস্তাহাব।

হজরত আবু কাতাদাহ আনসারি (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘মহানবী (সা.)-কে সোমবার রোজা রাখা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, ওই দিন আমি জন্মগ্রহণ করেছি। ওই দিনই আমি নবুয়ত লাভ করেছি বা আমার ওপর ওহি অবতীর্ণ হয়…। ’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ১১৬২)

প্রিয় পাঠক! আসুন আমরা মহানবী (সা.)-এর অনুসরণ করি। তাঁর আদর্শ আমাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে বাস্তবায়ন করি।
লেখক : ইসলামী গবেষক

পরকালে সুপারিশ প্রসঙ্গে আল্লাহর ঘোষণা !!

‘মাংজাল্লাজি ইয়াশফাউ’ ইংদাহু ইল্লা বি-ইজনিহি অর্থাৎ কে সেই ব্যক্তি? যে তাঁর (আল্লাহর) অনুমতি ব্যতিত তাঁর সমীপে কারো জন্য সুপারিশ করতে পারে। আয়াতুল কুরসির পঞ্চম অংশে আল্লাহ তাআলা দুনিয়ার মানুষকে তাঁর একচ্ছত্র আধিপত্যের চ্যালেঞ্জ ছূড়ে দিয়েছেন।

আয়াতের আগের অংশে আল্লাহ তাআলা নিজেকে আল্লাহ তাআলা নিজেকে আসমান-জমিনের একচ্ছত্র অধিপতি হিসেবে সাব্যস্ত হিসেবে সাব্যস্ত করেছেন। পরবর্তী অংশে তিনি এও জানিয়ে দিয়েছেন; এমন কোনো ব্যক্তি নেই, যে তাঁর অনুমতি ব্যক্তি কারো ব্যাপারো কোনো ধরণের সুপারিশ করতে পারে।

আলোচ্য আয়াতাংশটিও আয়াতুল কুরসির পঞ্চম বক্তব্য। এ বক্তব্যে আল্লাহ দুনিয়ার আগের এবং পরের সবার ব্যাপারেই এ কঠিন ঘোষণা দিয়েছেন যে, আল্লাহর অনুমতি ব্যতিত কেউ কারো ব্যাপারে তাঁর কাছে সুপারিশ করতে পারবে না।

আল্লাহ তাআলা যেহেতু যাবতীয় সৃষ্টির স্রষ্ঠা। আর কোনো সৃষ্টিই তার চেয়ে বড় নয়। তাই কোনো ব্যক্তিই তার কাজ সম্পর্কে প্রশ্ন বা খবরদারী করার অধিকার রাখে না।

হজরত ঈসা আলাইসি সালাম কর্তৃক সুপারিশ লাভ খ্রিস্টানদের একটি প্রবল বিশ্বাস। আবার বর্তমান সময়ে কিছু মানুষ এ আকিদা পোষণ করে যে, পীর বাবা, দয়াল বাবা, খাজা বাবা বা আধ্যাত্মিক গুরুই পরকালে তার অনুসারীকে সুপারিশ করে জান্নাতে নিয়ে যাবে। এ আয়াতাংশে সে বিশ্বাসের মূলে কুঠারাঘাত করা হয়েছে।

তবে এ কথা সুস্পষ্ট যে-

>> আল্লাহ তাআলা এ ব্যাপারে অবকাশ রেখেছেন যে, তাঁর প্রিয় হাবিব বিশ্বমানবতার মুক্তির কাণ্ডারী রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে সুপারিশের অনুমতি দান করবেন এবং প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুপারিশ কবুলও করবেন। হাশরের ময়দানে সবচেয়ে বড় শাফায়াতকারী হবে প্রিয়নবি নিজেই। (তাফসিরে জালালাইন) তাছাড়া হাদিসে পাকে প্রিয়নবি কর্তৃক তাঁর উম্মতের জন্য সুপারিশের অনেক ঘোষণাও রয়েছে।

>> “তবে আল্লাহ তাআলার কিছু খাস বান্দা রয়েছে, যারা তাঁর অনুমতি সাপেক্ষে তা করতে পারবেন। অন্যথায় নয়। হাদিসে ইরশাদ হয়েছে- রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘হাশরের ময়দানে সর্ব প্রথম আমি সমস্ত উম্মতের জন্য সুপারিশ করবো। একে ‘মাকামে মাহমুদ’ বলা হয়। যা প্রিয়নবির জন্য খাস; অন্যের জন্য নয়।” (তাফসিরে মারেফুল কুরআন)

আল্লাহ তাআলার শান ও মানের ওপর অগাধ আস্থা এবং বিশ্বাস অর্জনকারী ব্যক্তিই দুনিয়া ও পরকালে আয়াতুল কুরসির ফজিলত ও মর্যাদা লাভ করবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে আয়াতুল কুরসিতে ঘোষিত গুণগুলোর উপর বিশ্বাস স্থাপন করে শিরকমুক্ত ঈমান লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।

আপনার মন্তব্য দিন

শেয়ার