ডাল পুরি রেসিপি

আজকের রেসিপি আয়োজনে রয়েছে দারুণ মজাদার ডাল পুরি রেসিপি। আপনাদের কে দেখাবে কি ভাবে তৈরি করবেন দারুন মজার এই রেসিপিটি । খুব সহজে এবং তাড়াতাড়ি এই পদটি তৈরি করা যায়। চলুন জেনে নিই, কী কী উপকরণ লাগবে এই রেসিপিতে এবং কীভাবে তৈরি করবেন ডাল পুরি তৈরির রেসিপি

উপকরনঃ

ময়দা ২ কাপ,
তেল ২ টেবিল চামচ,
লবন পরমানমত, বেকিং পাউডার ১ চা চামচ, (বেকিং পাউডার না দিলেও চলবে),
পানি পরিমানমত

প্রণালীঃ

উপরের সব উপকরণ একসাথে মেখে ২০-৩০ মিনিট ঢেকে রাখতে হবে।

ভিতরের পুরের উপকরনঃ

মসুরের ডাল ১/২ কাপ,
আদা বাটা ১/২ চা চামচ,
পিয়াজ কুচি ২ টেবিল চামচ,
কাচামরিচ কুচি ২ টি,
লবন পরিমানমত

প্রণালীঃ

কডাইতে সব উপকরন দিয়ে সেদ্ধ করে একদম শুকিয়ে ফেলতে হবে।এবার নামিয়ে হাত দিয়ে ডাল মেখে নিতে হবে।ইচ্ছা করলে এর সাথে শুকনা মরিচ ভাজা গুডা,পেয়াজ বেরেস্তা,ধনেপাতা কুচি মেশাতে পারেন। এবার ময়দা নিয়ে গোল বাটির মত করে মাঝে ডালের পুর ভরে মুখ বন্দ করে জোডা অংশ উপরের দিকে রেখে ছোট ছোট রুটি বেলতে হবে।তারপর ডুবো তেলে ভাজতে হবে।

তেল ছাড়া রাঁধবেন যেভাবে
গবেষকরা পরীক্ষা করে দেখেছেন, খাদ্যগুণ ও স্বাদ নির্ভর করে তেলে নয়, মসলায়। তেল আলাদা কোনো স্বাদ যুক্ত করে না। মসলা কষাতে তেলের পরিবর্তে পানি ব্যবহার করুন। সকালের নাশতায় রাখতে পারেন রুটি, তেল ছাড়া স্ন্যাকস, স্যুপ বা সবজি। দুপুরে তেল ছাড়া মাছ, মাংস, ডাল ও সবজি। সঙ্গে সালাদ। একইভাবে রাতের খাবারও। শুধু তেলের পরিবর্তে পানি ব্যবহার করুন। রইলো তেল ছাড়া রান্নার দুটি রেসিপি

তেল ছাড়া মিক্সড সবজি

উপকরণ

ফুলকপি ১টা,

আলু আধা কেজি,

ব্রুকলি ১টা,

গাজর ১০০ গ্রাম,

মটরশুঁটি ৫০ গ্রাম,

বাঁধাকপি অর্ধেক,

কাঁচামরিচ ৫টা,

লবণ ২ চা চামচ,

ধনেপাতা ১ মুঠি,

কর্নফ্লাওয়ার ২ টেবিল চামচ,

মধু ১ চা চামচ।

প্রণালি

কপি, আলু, গাজর ও অন্যান্য সবজি পাতলা করে কেটে ধুয়ে নিন। এবার ২ কাপ পানি দিয়ে সবজিগুলো সেদ্ধ করে নিন। ২০ মিনিট পর সেদ্ধ হয়ে গেলে লবণ ও ধনেপাতা দিন। কর্নফ্লাওয়ার ঠাণ্ডা পানিতে গুলে ২ মিনিট রান্না করে নামিয়ে ফেলুন।

তেল ছাড়া মাছ ও বেগুন

উপকরণ

মাছ ২ টুকরা (যেকোনো),

বেগুন ১টি,

রসুন কুচি আধা চা চামচ,

পেঁয়াজ কুচি ১ টেবিল চামচ,

হলুদ গুঁড়া সিকি চা চামচ,

মরিচ গুঁড়া আধা চা চামচ,

কাঁচামরিচ ফালি ২টি,

ধনেপাতা কুচি ১ টেবিল চামচ।

প্রণালী

একটি কড়াইতে আধা কাপ পানি দিন। তার সঙ্গে কাঁচামরিচ ও ধনেপাতা বাদে সব মসলা দিয়ে ২-৩ মিনিট রান্না করুন। এরপর মাছ ও বেগুন একসঙ্গে দিন। পরে ভালো করে নেড়ে চুলার আগুন কমিয়ে ঢেকে রান্না করুন। ঝোল শুকিয়ে গেলে চুলা বন্ধ করে কাঁচামরিচ ও ধনেপাতা দিয়ে ঢেকে রাখুন।

ফুচকা বানানোর রেসিপি

ফুচকা খেতে কে না পচ্ছন্দ করেন, কিন্তু বাসায় বানিয়ে খেলে আরও স্বাস্থ্যকর হয়ে উঠবে। বাচ্চারা দারুন পছন্দ করে এই ফুচকা, আসুন দেখে নেওয়া যাক কি করে বাসায় তৈরি করবেন মজাদার টক ঝাল ফুচকা

উপকরণ

ফুচকার জন্য যা যা লাগবে

২০ টি ফুচকা বা পুরি
১ বাটি তেঁতুল জল

পুরের জন্য যা যা লাগবে

৩ টি আলু
১ টি পেয়াজ
২ চামচ ধনিয়াপাতা
১ চামচ জিরা
১ চামচ চাট মসল্লা
১/৪ চামচ শুকনা মরিচ গুড়া

টক জল বানাতে যা যা লাগবে

১/২ কাপ পুদিনা
১/৩ কাপ ধনিয়া পাতা
১ ইঞ্চি পরিমান আদা
২-৩ টি কাঁচা লঙ্কা
১ চামচ তেঁতুল
১ চামচ জিরা পাউডার
১ চামচ চাট মশলা
২-৩ কাপ পানি

রন্ধন প্রনালী

পুর বানানোর পদ্ধতি:

১. আলুগুলো ভাল করে সেদ্ধ করুন।

২. সেদ্ধ হয়ে গেলে আলুগুলো ভাল করে চোটকে নিন।

৩. পেঁয়াজটা কেটে নিন।

৪. একটা ছোট বাটিতে আলু সেদ্ধ, পেঁয়াজ, ধনে পাতা, জিরা পাউডার, চাট মশলা এবং বিট নুন নুন দিয়ে ভাল করে মেশান উপকরণগুলি।

ফুচকার জলটা বানানোর পদ্ধতি:

১. ব্লেন্ডারে প্রয়োজনীয় উপকরণগুলি দিয়ে দিন।

২. অল্প করে জল মিশিয়ে ভাল করে উপকরণগুলি পেস্ট করে একটা চাটনি বানিয়ে ফেলুন।

৩. সবে বানানো চাটনিতে ২-৩ কাপ জল মেশান। ভাল করে জলে গুলে দিন চাটনিটা। এবার একবার টেস্ট করে দেখুন কেমন খেতে লাগছে জলটা। কিছু কম মনে হলে সেটা পুনরায় মেশান জলের সঙ্গে।

কীভাবে ফুচকা আর জলকে একসঙ্গে পরিবেশন করবেন?

১. একটা চামচ বা বুড়ো আঙুল দিয়ে ফুচকার মাথাটা ফাটিয়ে নিন।

২. অল্প করে পুর নিয়ে ফুচকার ভেতরে ঢুকিয়ে দিন।

৩. জলটা ভাল করে একবার নারিয়ে নিন। তারপর পুর দেওয়া ফুচকাটা জলে চোবান।

৪. এবার পরিবেশন করুন ফুচকাটা।

আপনার মন্তব্য দিন

শেয়ার