কোন খাবার খেলে আবার অজু করতে হবে জেনে নিন

কোন ধরনের খাবার খেলে সালাতের আগে অজু করে নিতে হয়? শুনেছি, আগুনে রান্না করা খাবার খেলে নাকি সালাতের আগে অজু করতে হয়। এ কথা কি সঠিক?

এ মাসয়ালা নিয়ে আলেমদের মধ্যে বিতর্ক রয়েছে। প্রথমে রাসূল (সা.) আগুনে রান্না করা খাবার খেলে অজু করতে নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু পরবর্তী সময়ে রাসূল (সা.) এটা শিথিল করে দিয়েছেন। সুতরাং এটা খেলে অজু করতে হবে না।

শুধু একটি খাবার খেলে রাসূল (সা.) অজু করতে বলেছেন। সেটি হলো, যদি উটের গোশত কেউ খায়, তাহলে সে অজু করবে। উটের গোশত খাওয়ার পর রাসূল (সা.) অজু করার নির্দেশ দিয়েছেন, এ জন্য আমরা সেখানে অজু করব।

যেসব খাবার গর্ভপাত ঘটাতে পারে!

যে কোন নারীর জন্যেই গর্ভধারণ বিষয়টি আনন্দদায়ক। নিজ দেহের ভেতরে নতুন একটি প্রাণের আগমণ। আর এটি জানতে কার না ভালো লাগে! তবে এই সময় প্রত্যেক নারীকে থাকতে হয় একটু বেশি সতর্ক। এ সময় মাকে অনাগত সন্তানের স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে কিছু খাবার এড়িয়ে যেতে হয়।

আনারস : আনারসের রস অনেক সময় ডেলিভারি প্রক্রিয়াকে সহজ এবং দ্রুত করার জন্য ব্যবহার করা হয়। তবে গর্ভধারণের প্রথম তিন মাস আনারস খাওয়া থেকে বিরত থাকা উচিত। এতে থাকা উপাদান গর্ভপাত ঘটাতে পারে। গর্ভকালীন পুরো সময়টি আনারস না খাওয়ার চেষ্টা করুন।

পেঁপে : পেঁপে, বিশেষ করে কাঁচা পেঁপে গর্ভপাতের জন্য দায়ী অন্যতম একটি খাবার হিসেবে গণ্য করা হয়। কাঁচা পেঁপেতে ল্যাকট্রিক্স নামক একটি উপাদান আছে যা গর্ভপাতের মতো দুর্ঘটনা ঘটাতে পারে।

অঙ্কুরিত আলু : আঙ্কুরিত আলু শুধু গর্ভকালীন নারীদের জন্য নয় সবার জন্য এটি ক্ষতিকর। আলু যখন অঙ্কুরিত হয় তখন সেটিতে নানা বিষাক্ত পর্দাথ দেখা দেয়, যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। সবুজ অঙ্কুরে সোলানিন নামক উপাদান রয়েছে যা ভ্রƒণ বৃদ্ধিতে বাধা প্রদান করে থাকে।

ধনিয়াপাতা : ধনিয়াপাতা অনেকের বেশ পছন্দ। কিন্তু গর্ভকালীন সময় এ খাবারটি এড়িয়ে চলুন। এমনকি ধনিয়াপাতার জুস গর্ভধারণ হওয়ার সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়। এটি পেটে গ্যাস সৃষ্টি করে পেট ফাঁপা ভাব সৃষ্টি করে।

তিল : গর্ভকালীন তিল বা তিলজাতীয় খাবার কম খাওয়া উচিত। বিশেষ করে তিল মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া খুবই ক্ষতিকর। এটি স্বতঃস্ফূর্ত গর্ভপাত ঘটিয়ে থাকে। গর্ভকালীন তিল খাওয়া থেকে বিরত থাকাই ভালো।

অ্যালোভেরা : অ্যালোভেরা জেল নারীর রূপচর্চার অন্যতম একটি উপাদান। এটি ত্বক, চুল, হজমের জন্য বেশ উপকারি। গর্ভকালীন অ্যালোভেরার জুস খাওয়া উচিত নয়। বেশি ভালো হয় এ সময়টি সব ধরনের অ্যালোভেরা দিয়ে তৈরি পানীয় বা খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকা।

কলিজা : কলিজা পুষ্টিকর এবং মজাদার একটি খাবার। কিন্তু এই কলিজা গর্ভপাত ঘটাতে পারে যদি সেটি কোনো অসুস্থ প্রাণীর হয়ে থাকে। তাই কলিজা খাওয়ার সময় কিছুটা সচেতন থাকা উচিত।

যমজ সন্তান কেন হয়?

যমজ সন্তান কেন হয়? এ নিয়ে মানুষের কৌতূহলের শেষ নেই। অনেকেই জানতে চায় এর রহস্য। তবে যমজ সন্তান নিয়ে রহস্য বা গবেষণার কিছু নেই। গর্ভে একের অধিক সন্তান ধারণ করা অস্বাভাবিক কিছু নয়। অনেক ক্ষেত্রে বংশগত কারণে এটি হতে পারে। যেমন- মা বা নানি, যদি পূর্বে যমজ সন্তান জন্ম দিয়ে থাকেন। এটি প্রকৃতি প্রদত্ত বা গড গিফটেড বলা যেতে পারে।

কেন হয় যমজ সন্তান। এ বিষয়ে যুগান্তরের সঙ্গে আলাপচারিতায় নানা বিষয় আলোচনা করেছেন জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের গাইনি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. আফরোজা খানম।

তিনি বলেন, যমজ সন্তান জন্মের পেছনে কোনো রহস্য নেই। ডিম্বাণু ও শুক্রাণুর একটি ব্যাপার রয়েছে। এ ছাড়া মা বা নানি, যদি পূর্বে যমজ সন্তান জন্ম দেন। চিকিৎসার মাধ্যমে নিঃসন্তান মায়েরা যখন গর্ভধারণ করেন, তখনও যমজ সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এ ছাড়া স্বয়ং সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছায় এটি ঘটে থাকে। এখানে কারও হাত নেই।

তিনি বলেন, ইচ্ছাকৃতভাবে বা কোনো চিকিৎসার মাধ্যমে কখনই যমজ সন্তান নেয়া সম্ভব নয়।

কেন হয় যমজ সন্তান
মায়ের দেহে সাধারণত একই সময়ে একটি মাত্র ডিম্বাণু দুটি ডিম্বাশয়ের যে কোনো একটি থেকে নির্গত হয়। যদি দুটি ডিম্বাশয় থেকেই একটি করে ডিম্বাণু একই সময়ে নির্গত হয়, তবে ওভ্যুলেশন পিরিয়ডে তার শরীরে মোট দুটি ডিম্বাণু থাকে। এ সময় মিলন হলে পুরুষের শুক্রাণু উভয় ডিম্বাণুকেই নিষিক্ত করে। একটি নিষিক্ত ডিম্বাণু প্রথমে দুটি পৃথক কোষে বিভক্ত হয়। পরবর্তী সময় প্রতিটি কোষ থেকে একেকটি শিশুর জন্ম হয়। এখানে দুটি কোষ যেহেতু পূর্বে একটি কোষ ছিল, তাই এদের সব জিন একই হয়ে থাকে। এ কারণে এরা দেখতে অভিন্ন হয় এবং একই লিঙ্গের হয়। এভাবেই নন-আইডেন্টিক্যাল টুইন শিশুর জন্ম হয়। এসব শিশু সবসময় একই লিঙ্গের নাও হতে পারে এবং তারা দেখতে ভিন্নও হতে পারে।

সন্তান যমজ কিনা তা বুঝবেন যেভাবে
বেশি শরীর খারাপ ও গর্ভাবস্থায় পেটের আয়তন স্বাভাবিক তুলনায় বেড়ে যাওয়া। গর্ভের সন্তান যমজ কিনা জানতে দুই মাস পর আলট্রা সাউন্ড করে জেনে নিতে পারেন।

আপনার মন্তব্য দিন

শেয়ার