আপনার NID ব্যবহার করে মোট কতগুলো সিমকার্ড কেনা হয়েছে, জানেন কি? জেনে নিন

আপনি হয়তো ভাবছেন, এটা আবার কিভাবে সম্ভব, এটাতো সরকারের গোপন ব্যপার অথবা মোবাইল কোম্পানিগুলোর গোপনিয় কোন তথ্য এটা! হয়তোবা এটাও ভাবছেন যে, এটা জানতে হলে, আপনাকে হয়তো আইনের আওতাধিন কোন প্রকৃয়ার মাধ্যমে এগুতে হবে। অনেকে আবার এটাও ভাবছেন যে, এটা জানার আসলে কোন উপায় নেই, এরকম তথ্য শুধুমাত্র ডিবি পুলিশের কাছে বিশেষভাবে সংরক্ষন করে রাখা আছে।

এভাবে যারা ভাবছেন তাদেরকে বলা হয়ে সাধারন জনসাধারন।

যাই হোক, এগুলো হচ্ছে সাধারন আপামোর জনসাধারনের সাধারন চিন্তাভাবনার স্বরূপ; যারা খুব সহজেই কোন একটা ঘটনার পরিসমাপ্তিতে চলে যায়। আমরা সাধারন জনগণ, সো, আমাদের চিন্তাভাবনা এমন একটু আধটু সাধারন টাইপের হবে, এটাই সাভাবিক। এখানে লজ্জার কিছু নেই। অথবা নিজেকে ছোট করে ভাবারও কিছু। আর তাছাড়া, একজন মানুষ সব কিছু জানবে, এটা সম্পুর্ন অমূলক।

যাইহোক, শিরোনামের সাথে সামঞ্জস্যপুর্ন মুল তথ্যটি জানার আগে, অন্য একটা বিশেষ তথ্য সবার আগে উপস্থাপন করা দরকার। এই অন্য বিশেষ তথ্যটি জানাটা খুব জরুরি। এই মুল তথ্যটি না জানলে, পরে অন্যান্য নানাবিধ ঝামেলায় পড়ার আশংকা কিছুটা হলেও থেকে যায়। তথ্যটি নিম্নরুপঃ

একটি এন আই ডি দিয়ে ২০ টির বেশি সিম কেনা থেকে বিরত থাকুন। কারন ২১ নম্বর সিমটি সেই একই এন আই ডি দিয়ে কেনার পরে পরেই, আগের কেনা ২০ টি সিমের যে কোন একটি বন্ধ করে দেয়া হবে।

এখন আসল আলোচনায় আসা যাক। নিচে আলাদা আলাদাভাবে প্রতিটি মোবাইল অপারেটের ১টি NID দিয়া কেনা সিমের সংখ্যা জানার পদ্ধতি লিপিবদ্ধ করা হল।

Banglalink – বাংলালিংকঃ
যদি বাংলালিঙ্কের গ্রাহক হয়ে থাকেন তাহলে আপনার NID দিয়ে কতগুলো বাংলালিংকের সিম কার্ড কেনা হয়েছে সেটা জানার জন্য আপনাকে একটি USSD কোড ডায়াল করতে হবে।

সাধারনত যে কোড ডায়াল করে আমরা মোবাইলের ব্যলান্স জেনে থাকি সেই ধরনের সকল ডায়ালিং কোডকে USSD ডায়ালিং কোড বলা হয়ে থাকে।

বাংলালিংকের ক্ষেত্রে, আপনার NID দিয়ে ক্রয়কৃত বাংলালিঙ্ক সিমের সংখ্যা জানতে যে USSD কোড ডায়াল করতে হবে সেটি নিম্নরুপঃ

বাংলালিঙ্কঃ *1600*2#
উপরোক্ত কোডটি ডায়াল করার পর পরই আপনাকে একটি রিপ্লাই SMS এর মাধ্যমে, আপনার NID দিয়ে ক্রয়কৃত সিম কার্ডের সংখ্যা এবং নাম্বারগুলোর আংশিক অংশ জানানো হবে। মনে রাখবেন এটি শুধুমাত্র বাংলালিংকের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

প্রতিটি মোবাইল অপারেটরের জন্য আলাদা আলাদা ডায়ালিং কোড অথবা আলাদা আলাদা সিস্টেম রয়েছে।

Grameenphone – গ্রামিনফোনঃ
এবার আসা যাক গ্রামিনফোনের ক্ষেত্রে। বাংলালিঙ্কের মত গ্রামিনফোনে কোন USSD ডায়ালিং কোড নেই। এক্ষেত্রে গ্রাহক যদি এই তথ্য জানতে চান, তার NID দিয়ে কতগুলো গ্রামিনফোনের সিম কেনা হয়েছে তাহলে তাকে একটি ইনফো লিখে সেন্ড করতে হবে একটি নম্বরে। ফিরতি এস এম এস এ গ্রামিনফোন থেকে জানিয়ে দেয়া হবে সেই NID দিয়ে কতগুলো গ্রামিনফোনের সিম কার্ড কেনা হয়েছে।

SMS ফরমেট এবং সেন্ড করার নাম্বার নিম্নরুপঃ

গ্রামিনফোন সিম থেকে, info লিখে সেন্ড করুন 4949 নম্বরে। এছাডা *4949# ডায়াল করেও GP থেকে এই তথ্যটি পেতে পারবেন।
ফিরতি এস এম এস এ পেয়ে যাবেন আপনার কাংখিত তথ্য

ROBI – রবিঃ
রবির সিস্টেম একেবারে বাংলালিঙ্কের মতই। USSD ডায়ালিং কোড আছে। তাই আপনার NID দিয়ে কতগুলো রবির সিম আজ পর্যন্ত কিনেছেন, সেটা যদি জানতে চান তাহলে নিচের USSD কোডটি ডায়াল করুন।

রবির USSD ডায়ালিং কোড *1600*3#
Airtel – এয়ারটেলঃ
যদিও এয়ারটেল সিম খুব কম মানুষই ব্যবহার করে থাকেন। তারপরেও যারা এয়ারটেল সিম ব্যবহার করেন, তারা যদি জানতে চান, তাদের NID দিয়ে কতগুলো সিম কার্ড কেনা হয়েছে তাহলে নিচের USSD কোডটি ডায়াল করতে হবে।

এয়ারটেল USSD কোড *121*4444#
যত দ্রুত সম্ভব এই তথ্যগুলো জেনে রাখুন শুধুমাত্র আপনার নিজের ব্যবহার করা সিম কার্ড থেকে। সতর্ক থাকুন। নিরাপদ থাকুন।

Teltetalk – টেলিটকঃ
টেলিটকের সিস্টেম আর গ্রামিনফোনের সিস্টেম প্রায় একই। সো, আপানার NID ব্যবহার করে কতগুলো টেলিটকের সিম কার্ড কেনা হয়েছে, সেটা যদি জানতে চান, তাহলে আপনাকে একটি SMS পাঠাতে হবে, আপনার টেলিটকের সিম থেকে। এস এম এস পাঠানোর পর রিপ্লাই এস এম এসের মাধ্যমে টেলিটক আপনাকে জানিয়ে দেবে, কতগুলো টেলিটকের সিম কেনা হয়েছে আজ অবধি, আপনার জাতিয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে।

নিচের ফরমেট মোতাবেক SMS সেন্ড করে দিন টেলিটকে।

টেলিটকের সিম থেকে রাইট নিউ এস এম এস এ গিয়ে, info লিখে পাঠিয়ে দিন 1600 নম্বরে।

এসএমএস করে জেনে নিন কবে পাবেন আপনার স্মার্টকার্ড

দেশের নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্রের স্মার্টকার্ড দেওয়া শুরু করেছে সরকার। ইতোমধ্যেই অনেকে নিজেদের কার্ড বুঝে পেয়েছেন। তবে সবার হাতে এখনো পৌঁছায়নি স্মার্টকার্ড। কিন্তু যারা এখনও পাননি তারা নিজেই জেনে নিতে পারেন কখন হাতে পাবেন আপনার কার্ডটি। ১০৫ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে বা নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট থেকে জানতে পারবেন এ তথ্য।

এছাড়া নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটের https://services.nidw.gov.bd/voter_center লিংকে গিয়ে এনআইডি নম্বর ও জন্ম তারিখ অথবা ফরম নম্বর ও জন্মতারিখ দিয়ে স্মার্টকার্ড বিতরণের তারিখ জানা যাবে। তবে যাদের স্মার্টকার্ড বিতরণের তারিখ এখনো নির্ধারণ হয়নি তাদেরকে পরবর্তীতে আবার অনুসন্ধান করার কথা বলা হবে।

এসএমএসের মাধ্যমেও বিতরণের তারিখ ও কেন্দ্রের নাম জানা যাবে। এসএমএসের মাধ্যমে জানতে SC লিখে স্পেস দিয়ে NID লিখে একটা স্পেস দিয়ে ১৭ সংখ্যার এনআইডি নম্বর লিখে ১০৫ নম্বরে পাঠাতে হবে। আর যাদের এনআইডি ১৩ ডিজিটের তাদের এনআইডির নম্বরের প্রথমে জন্ম সাল যোগ করতে হবে বলে জানান তিনি। যেমন- SC NID 1974xxxxxxxxxxxxx

যারা ভোটার হিসেবে নিবন্ধিত হয়েছে কিন্তু এখনো এনআইডি পাননি তারা SC লিখে স্পেস দিয়ে F লিখে স্পেস দিয়ে নিবন্ধন স্লিপের ফরম নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে D লিখে স্পেস দিয়ে yyy-mm-dd ফরমেটে জন্ম তারিখ লিখে ১০৫ নম্বরে পাঠাতে হবে।

কুমিল্লায় কবে কোথায় দেওয়া হবে আপনার স্মার্ট কার্ড

নভেম্বর থেকে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের বাসিন্দাদের মাঝে স্মার্টকার্ড বিতরণ কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, নভেম্বর সকাল ১০টায় কুমিল্লা টাউনহলে স্মার্টকার্ড বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন নির্বাচন কমিশনার মো: রফিকুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ উপস্থিত থাকবেন। কুমিল্লা সিটির কোথায় কখন স্মার্ট কার্ড দেওয়া হবে তার তালিকা নিউজে দেওয়া হল।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত যেকোনো তথ্য জানাতে একটি হেল্প ডেস্ক খুলেছে এনআইডি উইং। যেকোনো ফোন থেকে ১০৫ নম্বরে কল করলে নাগরিকদের তথ্য জানাবেন জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন বিভাগের কর্মকর্তারা।

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, উন্নতমানের নাগরিকদের জন্য এ জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণের প্রথম বছরেই মাত্র এক কোটি ২৫ লাখের মতো বিতরণ করতে পেরেছে নির্বাচন কমিশন। এ অবস্থায় প্রকল্পের মেয়াদ বাড়িয়ে নতুন প্রকল্প নেয়া হচ্ছে ।

সেই সাথে উৎপাদন ও বিতরণ কাজে সম্পৃক্ত করা হচ্ছে সেনাবাহিনীকে।

নয় কোটি নাগরিকের ইতোমধ্যে এক কোটি ২৪ লাখ ১০ হাজার স্মার্টকার্ড (১২ দশমিক ৪১ মিলিয়ন) উৎপাদন ও পার্সোনালাইজেশন (ব্লাঙ্ক কার্ডের মধ্যে নাগরিক তথ্য ইনপুট সম্পন্নকরণ) হয়েছে।

আগামী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে বাকি সাত কোটি ৭৫ লাখ ৯০ হাজার (৭৭ দশমিক ৫৯ মিলিয়ন) স্মার্ট কার্ড উৎপাদন ও বিতরণ করার কথা রয়েছে।

গত ২০১৬ সালের ২ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্মার্ট কার্ড বিতরণ উদ্বোধন করেন। পরে ৩ অক্টোবর থেকে ঢাকা মহানগরীতে বিতরণ শুরু হয়। এ পর্যন্ত সিটি করপোরেশনগুলো ও বিলুপ্ত একটি ছিটমহলে স্মার্ট কার্ড বিতরণের কাজ চলেছে।

ইসির তথ্যমতে, দেশে বর্তমানে মোট ১০ কোটি ১৮ লাখ ভোটার রয়েছেন। প্রাথমিকভাবে নয় কোটি ভোটারকে স্মার্টকার্ড দেয়া হবে। পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে সবাইকে স্মাট কার্ড দিবে ইসি। এর আগে ঢাকা চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশালে রংপুর, সিলেটে স্মার্ট কার্ড বিতরণ শুরু করে ইসি।

আপনার মন্তব্য দিন

শেয়ার